" /> চ্যাটজিপিটি বনাম গুগল বার্ড প্রতিযোগিতা তুঙ্গে – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শনিবার, ০১ এপ্রিল ২০২৩, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন

চ্যাটজিপিটি বনাম গুগল বার্ড প্রতিযোগিতা তুঙ্গে

google vs chatgpt e1676295144379

বর্তমানে প্রযুক্তি দুনিয়ার সবচেয়ে আলোচিত বিষয় চ্যাটজিপিটি। দুই মাসের মধ্যে ১০ কোটি ব্যবহারকারীর মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলেছে চ্যাটজিপিটি। গত বছরের নভেম্বরে বাজারে এসেছিল এ চ্যাটবটটি। সম্প্রতি চ্যাটজিপিটিতে ১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে মাইক্রোসফট। অন্যদিকে গুগলও বসে নেই। তারাও নিয়ে এসেছে গুগল বার্ড। তবে ভুল উত্তর দিয়ে গুগলকে উল্টো ক্ষতির মুখে ফেলে দিয়েছে বার্ড।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে শুরু করে সরাসরি এবং সর্বত্র আলোচনার ঝড় বইছে চ্যাটজিপিটি নামক আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) নিয়ে। চ্যাটজিপিটি নামক এই চ্যাটবট দিয়ে মুহূর্তে বের করে ফেলা যায় কোনো ঘটনার ব্যাখ্যা। এর সাহায্যে অনেক কাজই মানুষ এখন সহজে করিয়ে নিতে পারছে। সম্প্রতি এই চ্যাটবট নিয়ে ইতিবাচক মন্তব্য করেছেন বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকায় থাকা মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস। শুধু তা-ই নয়, জানা গেছে- চ্যাটজিপিটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ওপেনএআইয়ে ১০ বিলিয়ন বা ১ হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে মাইক্রোসফট। এরই মধ্যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তিসম্পন্ন চ্যাটজিপিটি সংবলিত সার্চ ইঞ্জিন ‘বিং’ নিয়ে এসেছে মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফট।

অন্যদিকে চ্যাটজিপিটিকে টক্কর দিতে এআই চ্যাটবট ‘বার্ড’ নিয়ে এসেছে মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যালফাবেট তথা গুগল। এআইয়ের ওপর ভর করে এ দুই প্রতিষ্ঠানের দ্বন্দ্ব এবার বেশ জমে উঠেছে। গুগলের প্রধান নির্বাহী সুন্দর পিচাই বলেন, দুই বছর আগে আমরা পরবর্তী প্রজন্মের ভাষা ও কথোপকথন সক্ষমতা প্রকাশ করেছিলাম- যেটি ‘ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল ফর ডায়ালগ অ্যাপ্লিকেশন’ বা সংক্ষেপে ল্যামডা প্রযুক্তিনির্ভর। আমরা কথোপকথন সম্পর্কিত একটি এআই মডিউল নিয়ে কাজ করছিলাম- যেটিকে আমরা বলছি ‘বার্ড’।

জিপিটি ৩ দশমিক ৫ প্রযুক্তির ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে চ্যাটজিপিটি। প্রায় একই প্রযুক্তি ব্যবহার করে বার্ড তৈরি করেছে গুগল। চ্যাটজিপিটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার দিক থেকে অনেকটা এগিয়ে। তাই ইতোমধ্যে সেটি গ্রাহকদের মধ্যে জনপ্রিয় হতে শুরু করেছে। অন্যদিকে বার্ড সবে বাজারে এসেছে। ফলে চ্যাটজিপিটির সঙ্গে পাল্লা দিতে নেমে কিছুটা পিছিয়েই পড়েছে বার্ড।

টুইটারে গত সোমবার প্রকাশিত প্রমোশনাল একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, বটটিকে জিজ্ঞাসা করা হয় একজন ৯ বছর বয়সী শিশুকে জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের আবিষ্কার সম্পর্কে কী কী জানানো যেতে পারে। বটটির উত্তর ছিল, টেলিস্কোপটি সৌরজগতের বাইরে ছবি তুলতে সক্ষম প্রথম টেলিস্কোপ। ভুলটি খুব সহজেই জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের চোখে পড়ে যায়। কারণ এই কৃতিত্ব ইউরোপিয়ান ভেরি লার্জ টেলিস্কোপ (ভিএলটি) ২০০৪ সালেই করে দেখিয়েছে। বার্ডের ক্ষমতা প্রদর্শনের জন্য তৈরি করা বিজ্ঞাপনের এই ভুল উত্তরে গুগলের প্যারেন্ট কোম্পানি অ্যালফাবেটের মার্কেট ভ্যালু ৭ শতাংশ কমে যাওয়ায় হারিয়েছে ১০০ বিলিয়ন ডলার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা