" /> স্বামীকে না জানিয়ে দুই সন্তান নিয়ে জাপানে চলে যাচ্ছিলেন সেই নাকানো এরিকো – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন

স্বামীকে না জানিয়ে দুই সন্তান নিয়ে জাপানে চলে যাচ্ছিলেন সেই নাকানো এরিকো

WhatsApp Image 2022 12 24 at 11.16.02

8 / 100

নিজস্ব প্রতিবেদক: স্বামী ইমরান শরীফকে না জানিয়ে দুই সন্তানকে জাপানে নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছিলেন নাকানো এরিকো। এই দম্পতি দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছেন। ইমরান চান নিজের কাছে দুই সন্তানকে রাখতে। অন্যদিকে এরিকো চান তার কাছে সন্তান রাখতে।

এই দম্পতি বেশ কয়েকমাস ধরেই আদালতের চক্কর কাটছেন। তবুও সমাধান মেলেনি। এর জন্য দায়ও তাদের দুজনেরই। এর মধ্যে আজ এরিকো ইমরানকে না জানিয়েই সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে চেপে দুই সন্তান নিয়ে জাপান চলে যেতে চেয়েছিলেন। পরে শুক্রবার দিবাগত রাতে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে আটক করে। না জানিয়ে জাপান চলে যাওয়ার বিষয়টি শুক্রবার দিবাগত রাত ১২ টায় ইমরান বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে জানালে নাইকোর যাত্রা বন্ধ হয়ে যায়।

ইমরান শরীফ শনিবার সকালে এনডিটিভিকে বলেন, গোপনে তার জাপানি স্ত্রী তাদের দুই সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। এই ঘটনায় তাকে সহযোগিতা করেছেন নাসরিন নাহার ও নাজমুল নামের তার আরেক বন্ধু। আমি সংবাদ পাওয়ার পর বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষতে অবগত করলে তাদের বিমানে উঠতে দেওয়া হয়নি। পরে আমি নিজে উপস্থিত হয়ে উচ্চ আদালতের আদেশ দেখানোর পর বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিয়েছে।


এর আগে গ্রীষ্মকালীন ছুটি কাটাতে শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনাকে সঙ্গে নিয়ে জাপান ভ্রমণের অনুমতি চেয়ে তাদের মা নাকানো এরিকো উচ্চ আদালতে আবেদন করেন। চলতি বছরের ২ জুন সেই আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ। সেই সঙ্গে স্বামী-স্ত্রী একে অপরের বিরুদ্ধে করা আদালত অবমাননার আবেদনও খারিজ করে দিয়েছেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ ওই আদেশ দেন।

এর আগে জাপানি দুই শিশু বাংলাদেশে তাদের বাবা ইমরান শরীফের কাছে থাকবে বলে গত বছরের ২১ নভেম্বর রায় দেন হাইকোর্ট। রায়ে বলা হয়, জাপান থেকে এসে মা বছরে তিনবার ১০ দিন করে দুই সন্তানের সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতে পারবেন। জাপানি মায়ের আসা-যাওয়া ও থাকা-খাওয়ার সব খরচ বাবা ইমরান শরীফকে বহন করতে হবে। তবে অতিরিক্ত সময় যাওয়া-আসা করলে তা মাকেই বহন করতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা