" /> রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে জাতীয় গ্রিডে যোগ হচ্ছে ৬৬০ মেগাওয়াট,পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু, – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:৫৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ
খালেদা, তারেককে নিয়ে সময় টিভির প্রতিবেদন সম্পর্কে যা বললেন ফখরুল বিদ্যুতের দাম প্রতি মাসেই সমন্বয় করা হবে : প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী বিশ্বব্যাপী উচ্চশিক্ষার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছেন : নাছিম বিআইডব্লিউটিএ’র অনুমোদন ছাড়া কোনো সেতু নয় : নৌ প্রতিমন্ত্রী সিলেটে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস- ২০২৩ উদযাপন সাংবাদিক আফতাব হত্যা : ৯ বছর ছদ্মবেশে ফাঁসির আসামি, অবশেষে গ্রেপ্তার বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা সাংবাদিক আফতাব হত্যা : ৯ বছর ছদ্মবেশে ফাঁসির আসামি, অবশেষে গ্রেপ্তার বার বার আদালতে আনা নেয়ায় অসুস্থ হয়েছেন রিজভী : ইউট্যাব ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার মূল হাতিয়ার হবে ডিজিটাল সংযোগ : প্রধানমন্ত্রী

রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে জাতীয় গ্রিডে যোগ হচ্ছে ৬৬০ মেগাওয়াট,পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু,

rampal e1671462794334

5 / 100

রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র (কয়লাভিত্তিক মৈত্রী সুপার থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্ট) শনিবার রাতে পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করেছে। এর মধ্যমে ইউনিট-১ থেকে জাতীয় গ্রিডে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হচ্ছে। 
এর আগে, গত ১৫ আগস্ট ২ গুণ ৬৬০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন মৈত্রী সুপার থার্মাল পাওয়ার প্রকল্পের দু’টির একটি ইউনিট-১ সফলভাবে জাতীয় গ্রিডের সঙ্গে যুক্ত করা হয়। এটি তখন জাতীয় গ্রিডে ৯১.৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করে।
প্রকল্পের একজন কর্মকর্তা আজ বাসসকে জানান, ২০২৩ সালের জুনে ইউনিট-২ থেকে জাতীয় গ্রিড আরও ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যুক্ত করা হবে।
বিআইএফপিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাঈদ একরাম উল্লাহ বলেন, শনিবার রাত থেকে ইউনিট-১-এর পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু হয়েছে, আমরা বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করেছি। এরই মধ্যে সব ধরনের কারিগরি কাজ শেষ হয়েছে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক জোরদারের পাশাপাশি এলাকার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। 
আনুমানিক ১৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত, এই প্রকল্পের দুটি ইউনিট (প্রতিটি ৬৬০ মেগাওয়াট) থেকে মোট ১,৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্য রয়েছে।
প্রকল্পের উপ-ব্যবস্থাপক আনোয়ারুল আজিম বলেন, প্রথম ইউনিট থেকে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে দ্বিতীয় ইউনিটের ৭৯ দশমিক ৩৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে বাকি কাজ শেষ হবে।
৬৬০ মেগাওয়াটের ২টি (১৩২০) মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি প্রায় ২.০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয়ে স্থাপন করা হচ্ছে এবং এটি খুলনা বিভাগের বাগেরহাট জেলার রামপালে অবস্থিত।
প্রায় ৯১৫.৫ একর জমির উপর অবস্থিত এই প্ল্যান্ট থেকে উৎপাদিত শতভাগ বিদ্যুৎ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে সরবরাহ করা হবে। এই প্ল্যান্ট থেকে বিদ্যুৎ প্রেরণ ও বিতরণের জন্য, কারখানা থেকে খুলনা পর্যন্ত ২৩০ কেভি ডাবল সার্কিট লাইন এবং গোপালগঞ্জ পর্যন্ত ৪০০ কেভি ডাবল সার্কিট লাইন নির্মাণের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।

সূত্রঃ বাসস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা