" /> বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বিএনপিকে সারা দেশে কোথাও নামতে দেওয়া হবে নাঃ মায়া – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:২৬ পূর্বাহ্ন

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বিএনপিকে সারা দেশে কোথাও নামতে দেওয়া হবে নাঃ মায়া

20221212135702

5 / 100

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বিএনপিকে সারা দেশে কোথাও নামতে দেওয়া হবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া

সোমবার (১২ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে জহুর হোসেন চৌধুরী মিলনায়তনে , বিএনপি ও জামাত -শিবিরের দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র ও নৈরাজ্যৈর বিরুদ্ধে, সম্মিলিত আওয়ামী সমর্থক জোটের প্রতিবাদ সভায় তিনি এই কথা বলেন,

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন- বিএনপি নির্বাচিত স্থিতিশীল সরকারকে বেকায়দায় ফেলে গোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়, তাদের এই ধরনের কর্মকাণ্ড জনগণ প্রতিহত করবে, বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বিএনপিকে সারা দেশে কোথাও নামতে দেওয়া হবে না, তারা পালাবার পথ খুঁজে পারবেনা, তারা বলেছিল দশ তারিখে তারেক জিয়া নাকি এসে গেছে ,তাই শুধু আকাশের দিকে তাকায়,তারা দিবা স্বপ্ন দেখে , বর্তমানে বিএনপি আগুন সন্ত্রাস করার জন্য পাঁয়তারা করছে,তারা দশ তারিখ নিয়ে মূখে ফেনা তুলেছে,কেউ বলেছে দশ লাখ, কেউ বলেছে বিশ লাখ লোক হবে, কিন্তু পল্টনে সমাবেশ করতে না পেরে , গোলাপ বাগ গরুর হাটে গিয়ে গরু ছাগল হয়ে গেছে, মূলত পল্টনে সন্ত্রাসী পরিকল্পনা করেছিল বিএনপি জামায়াত জোট , আসলে তারা কাগজের বাঘ, তাদের পক্ষে সাধারণ মানুষ নেই,যারা আছে তারা হলো আগুন সন্ত্রাস লোক, তাহারা শুধু উস্কানি মূলক বক্তব্য দিয়ে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করাতে পারে,

বিএনপি-জামাতের উদ্দেশ্যে বলেন, ক্ষমতার লোভে এই সকল অপরাজনীতি বন্ধ করেন। আপনারা যদি দেশকে ভালবাসেন, আপনাদের উচিৎ গঠনমূলক বিরোধিতা করে এদেশকে আরো শক্তিশালী করা। কই কোনো জাতীয় সংকটে আপনাদেরতো জনগণের পাশে দেখলাম না। যখন দেখলেন সরকারের মেয়াদ শেষের দিকে, তখন ক্ষমতার লোভে অন্ধ হয়ে একটা কার্যকরী এবং গণতান্ত্রিক সরকার উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলেন। তা আবার কিভাবে? বিদেশিদের সাথে সন্ধি করে, আগুন সন্ত্রাস করে , বিদেশীদের কাছে লবিং করে। কি দাবি আপনাদের? নিরপেক্ষ-নির্দলীয় সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে? তার মানে হচ্ছে অগণতান্ত্রিক এবং অসাংবিধানিক পন্থা আপনাদের পছন্দ, আমরা জানি। আপনাদের চাচ্ছেন যে আমরা একটা গণতান্ত্রিক পন্থায় একটা অসাংবিধানিক এবং অরাজনৈতিক সরকারের হাতে অন্তবর্তীকালে ক্ষমতা হস্তান্তর করি। কিন্তু কেন? কিসের জন্য? যাতে আপনারা ষড়যন্ত্রেরে ফাঁদ পাততে পারেন সেই জন্য? আপনারা সুবিধাবাদী উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য? এই হচ্ছে আপনাদের চরিত্র এবং এই হচ্ছে আপনাদের দেশপ্রেম। এদেশের নতুন প্রজন্ম এতো বোকা না, এই প্রজন্ম আসলেই আপনাদের বিশ্বাস করতে পারে না। আপনারা যে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে চাচ্ছেন সেটা এই ডিজিটাল বাংলাদেশের সকল মানুষ বোঝে।

এ্যাডঃ কামরুল ইসলাম এমপি বলেন, বিএনপি সৃষ্টি হয়েছিল আইএসআইয়ের প্রেসক্রিপশনে ,তাই তারা গণতন্ত্র বুঝে না, বিএনপির গণতান্ত্রিক সাংবিধানিক ভাবে সরকার পরিবর্তন চাই না, তারা একনায়ক তান্ত্রিক সরকার চায়, গতকাল তাদের সংসদ সদস্যরা পদত্যাগ করেছেন, এতে সংসদীয় রাজনীতিতে সরকারের সমস্যা হবে না, বিএনপি আইন মানে না, বিদেশি কূটনীতিকদের আরো সতর্ক করা উচিত,তারা যে ভাবে আমাদের রাজনীতির বিষয়ে হস্তক্ষেপ করছে, পৃথিবীর ইতিহাসে এই নজির নেই।মুলত বিএনপি বিদেশে লভিস্ট নিয়োগের ফসল,আজকের বিএনপির যে আন্দোলন, সে আন্দোলন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীন নির্বাচন বা তারা নির্বাচনে যেতে চায় সে আন্দোলন নয়। তারা সাধারণ মানুষের ভোটে বিশ্বাস করে না, বিএনপি জানে সাধারণ মানুষের ভোটে তারা নির্বাচিত হতে পারবে না। তাই তারা এক-এগারোর কুশীলবদের নিয়ে সক্রিয়। বিএনপি ২০০৬ সালের মতো একটা তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাংলাদেশে কায়েম করে, তিন মাসের তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে দুই বছরের জন্য প্রলম্বিত করতে চায়, অনির্বাচিত সরকার প্রতিষ্ঠা করতে চায়।

উক্ত প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা নিয়াজ মুহাম্মদ খান, বক্তব্য রাখেন মুরাদ হাসান সহ ঢাকা মহানগর আওয়ামীলীগ এর জোটের নেতৃবৃন্দ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা