" /> সৌন্দর্যের প্রাকৃতিক লীলাভূমি সন্দ্বীপ – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ

সৌন্দর্যের প্রাকৃতিক লীলাভূমি সন্দ্বীপ

Sandwip Island e1670251663532

5 / 100

জীবনটাকে সুন্দর করে নিতে হলে মাঝেমধ্যেই উজাড় করা প্রকৃতির সান্নিধ্যে নিজেকে বিলিয়ে দেওয়া দরকার। সেই চেতনা থেকেই ছুটে যাওয়া যায় সৌন্দর্যের লীলাভূমি সন্দ্বীপ। কোনো পূর্ব পরিকল্পনা ছাড়াই যাওয়া যাবে। কারন ট্রেন, বাস ও জাহাজ যেকোন পথে যাওয়া যায় কুমিরা পর্যন্ত। সেখান থেকে সিএনজিতে চড়ে কুমিরা নৌ-টার্মিনাল ঘাট। ভোর ৭টার আগে ট্রলার-স্পিডবোট কোনো কিছুই মিলবে না।সাগরের কোলঘেঁষা পন্টুনে ভোরের আলো। একদা সাগর-মহাসাগরের বুক চষে বেড়ানো বড় বড় জাহাজগুলো স্ট্ক্র্যাপ করার জন্য এই ঘাটেই নোঙর করে রাখা । স্পিডবোটে চড়ার জন্য ঘাটের সেতুটাও বেশ দৃষ্টিনন্দন। হাঁটতে হাঁটতে মনে হবে যেন আপনি সোজা সাগরের বুকে এগিয়ে যাচ্ছেন।

২০- ২২ জন যাত্রী নিয়ে বঙ্গোপসাগরের বুক চিরে স্পিডবোট মাত্র ২০ মিনিটে নামিয়ে দেয় সন্দ্বীপ নৌ-টার্মিনাল ঘাটে। জেটিতে পা রাখতেই বেশ ভালো লাগে। টার্মিনালের আশপাশ গোট্টাছড়া ঘাট ও সাগরপাড়ের ম্যানগ্রোভ বেশ হাতছানি দেয়।

যেতে যেতে পথে পথে থেমে, কখনোবা আবার তেলে ভাজা মচমচা পরোটা-ভাজি আর মহিষের দুধের দই, মিষ্টি দিয়ে উদোর পূর্তি করতে পারেন। এ রকমটা করতে করতেই পৌঁছে যাবেন কালাপানিয়া বেড়িবাঁধ। স্থানীয়দের সহায়তায় দ্রুত মেঘনার মোহনার তীরে জনমানব শূন্য নারকেল-খেজুর গাছঘেরা স্থানে তাঁবু ফেলে রাতটা এখানেই কাটতে পারবেন । ভ্রমণ সংঘ দূর বহুদূর যেথায় যাক না কেন, স্থানীয়দের সঙ্গে ভাব জমাতে সময় লাগে না তেমন। দেখা যায় প্রায় ৯০ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত কালাপানিয়া হেদায়েতুল উলুম মাদ্রাসা প্রাঙ্গন। জনশ্রুতি রয়েছে, এই মাদ্রাসার কাছাকাছি এসেই মেঘনার ভয়াবহ ভাঙনের তাণ্ডব বন্ধ হয়েছিল। মাদ্রাসার জনৈক হুজুরের আহ্বানে হাজার হাজার গ্রামবাসী বাঁশ পুঁতেছিল। এরপর আর মেঘনার করাল গ্রাস এদিকটায় আগায়নি। বর্তমানে সেখানে বিশাল চর জেগেছে। স্থানীয় সমাজকর্মী ওমর ফারুকের ভাষ্যমতে, চরের পরিধি যে হারে বাড়ছে তাতে হয়তো একসময় নোয়াখালী জেলার সঙ্গে গিয়ে ঠেকবে।

মূল ভূখণ্ড হতে বিচ্ছিন্ন সন্দ্বীপে প্রায় তিন হাজার বছর ধরেই জনবসতি রয়েছে। এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামও মুগ্ধ হয়েছিলেন। একসময় এখানে লবণশিল্প, জাহাজ নির্মাণ কারখানা ও বস্ত্রশিল্পের খ্যাতি বিশ্বব্যাপী ছিল। তুর্কি সাম্রাজ্যের সুলতান পর্যন্ত সন্দ্বীপে নির্মিত জাহাজের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে এখান থেকে বেশ কিছু জাহাজ সংগ্রহ করেছিলেন। বহির্বিশ্বের ভ্রমণতরী ও বাণিজ্যিক জাহাজও সন্দ্বীপে নোঙর ফেলত। সেই সুবাদে পুর্তগিজদের লোলুপ দৃষ্টি পড়ে সন্দ্বীপের ওপর। গড়ে তোলে নিজেদের উপনিবেশ অঞ্চল। এরপর ১৬১৫ সালে পুর্তগিজদের সঙ্গে আরাকান রাজ্যের যুদ্ধে ২০০ সৈন্যসহ পুর্তগিজ সেনাপতি ইমানুয়েল মার্তুস নিহত হলে তারা সন্দ্বীপ ছেড়ে গেলে, ১৬১৬ সালে মগরাজ সন্দ্বীপ দখলে নেয়। এরপর আরাকান ও মগদের প্রাধান্য থাকলেও তাদের পরাধীনতা অস্বীকার করে এ অঞ্চল প্রায় অর্ধশতাব্দী রাজত্ব করে দেলোয়ার খাঁ। বিখ্যাত পর্যটক ইবনে বতুতাসহ পৃথিবীর অনেক পর্যটক সন্দ্বীপের সৌন্দর্যে আকৃষ্ট হয়ে এখানটাতে এসে মুগ্ধ হয়েছিলেন। মুগ্ধ না হয়ে কী আর উপায় আছে। বর্তমান সন্দ্বীপের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখেই অনেকটা অনুমান করা যায়, শত বছর আগের সন্দ্বীপ যে আরও অনেক বেশি প্রকৃতির নৈসর্গিক ভান্ডার ছিল, তা ভেবেচিন্তে ছাড়াই বলা যায়।

পঞ্চদশ শতাব্দীর প্রায় ৬৩০ বর্গমাইলের সন্দ্বীপ ক্রমাগত নদীভাঙনের শিকার হতে হতে বর্তমানে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার লড়াইয়ে অবতীর্ণ মাত্র ৮০ বর্গমাইল আয়তনের নয়নাভিরাম সন্দ্বীপে ভ্রমণপিপাসুদের জন্য ক্যাম্পিং করে থাকার জন্য কালাপানিয়া, হরিশপুর ও রহমতপুর বেস্ট। অসাধারণ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মোড়ানো। সারিসারি নারকেল, খেজুর গাছের ফাঁক গলে দিনে সূর্যের আর রাতে চাঁদের আলোয় মনটাকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে অপার্থিব সুখে। কী বিশ্বাস হচ্ছে না? সবুজ ঘাসে শুয়ে-বসে আমার কিন্তু সে রকমটাই মনে হয়েছে। আমি নিশ্চিত সন্দ্বীপের নজরকাড়া প্রাকৃতিক রূপের ভান্ডার ভ্রমণপিপাসুদের বিমোহিত করবেই।

যাবেন যেভাবে
ঢাকা-চট্টগ্রামের ট্রেন, বাস চড়ে নেমে পড়বেন সীতাকুণ্ড উপজেলার কুমিরা। সেখান থেকে অটো-সিএনজি করে কুমিরা নৌ-টার্মিনাল। সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত সন্দ্বীপে স্পিডবোট চলাচল করে। সন্দ্বীপের গোট্টাছড়া ঘাট থেকে সিএনজিতে চড়ে কালাপানিয়া বেড়িবাঁধ, হরিশপুর কিংবা রহমতপুর যাওয়া যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা