" /> গ্যালাপাগোস দ্বীপের পাখি প্রজাতিকে বার্ড ফ্লু থেকে রক্ষায় উদ্যোগ – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন

গ্যালাপাগোস দ্বীপের পাখি প্রজাতিকে বার্ড ফ্লু থেকে রক্ষায় উদ্যোগ

710666 134

4 / 100

ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকা থেকে ছড়িয়ে পড়া বার্ড ফ্লু (এইচ৫এন১) ভাইরাস থেকে গ্যালাপাগোস দ্বীপপুঞ্জের অন্যান্য পাখি প্রজাতিকে রক্ষায় ইকুয়েডর পরিকল্পনা তৈরি করেছে।

সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে বার্ড ফ্লু ভাইরাস পরিযায়ী বন্য পাখির মাধ্যমে দক্ষিণ আমেরিকায় পৌঁছেছিল, প্রধানত পেরুতে ছড়িয়ে পড়ে, যেখানে হাজার হাজার পেলিকান এবং অন্যান্য সামুদ্রিক পাখি মারা গেছে এবং ফ্লু’র বিস্তার রোধে ইকুয়েডর এক লাখ ৮০ হাজার খামারের পাখি হত্যার আদেশ দিয়েছে।

গ্যালাপাগোস ন্যাশনাল পার্কের পরিচালক ড্যানি রুয়েদা এক বিবৃতিতে বলেছেন, সমস্ত পর্যটন হটস্পটসহ ‘সবচেয়ে বেশি সামুদ্রিক পাখি আছে এমন এলাকায় স্থায়ী পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

গ্যালাপাগোস দ্বীপপুঞ্জ হলো অসংখ্য অনন্য এবং রঙিন পাখির জন্য পাখি-পর্যবেক্ষকদের স্বর্গ, যেমন নীল পায়ের বুবি, তার অদ্ভুত মিলনের রীতি সাথে এবং স্থানীয় পেঙ্গুইন, করমোরান্ট এবং অ্যালবাট্রস প্রজাতির জন্য বিখ্যাত।

ইংরেজ প্রকৃতিবিদ চার্লস ডারউইন ১৮৩৫ সালে গ্যালাপাগোস দ্বীপে ফিঞ্চ এবং মকিংবার্ড পর্যবেক্ষণ করার পর তার বিবর্তন তত্ত্ব লিখেছেন।

বুধবার, ইকুয়েডর কিছু খামারে অত্যন্ত সংক্রামক বার্ড ফ্লু সনাক্ত করার পর ৯০ দিনের পশু স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে এবং প্রভাবিত স্থানে প্রায় এক লাখ ৮০ হাজার হাঁস-মুরগি জবাই করার নির্দেশ দিয়েছে।

পেরুতে কর্তৃপক্ষ কমপক্ষে ৩৭ হাজার মুরগি হত্যা করেছে এবং প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেছে। এ জন্য ১৪ হাজারের বেশি সামুদ্রিক পাখি হত্যা করেছে, এর বেশিরভাগই পেলিকান।

বার্ড ফ্লু শনাক্ত হওয়ার পর শুক্রবার ভেনিজুয়েলা পাঁচটি উপকূলীয় রাজ্যে ৯০ দিনের স্বাস্থ্য সতর্কতা ঘোষণা করেছে। কোয়ারেন্টাইন জোনে জীবিত পাখির চলাচল নিষিদ্ধ করেছে।
বর্তমান বার্ড ফ্লু প্রাদুর্ভাব কানাডায় শুরু হয়েছিল এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ছড়িয়ে পড়েছে, যেখানে ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন অনুসারে রেকর্ড ৫০ মিলিয়ন বার্ড ফ্লু (এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা) বাহক মারা গেছে।

ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল অনুসারে ইউরোপেও ভাইরাসটির সবচেয়ে খারাপ প্রাদুর্ভাবের সম্মুখীন হচ্ছে।

বার্ড ফ্লুর কোনো চিকিৎসা নেই, যা প্রাকৃতিকভাবে বন্য পাখিদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে এবং গৃহপালিত হাঁস-মুরগিও সংক্রমিত করতে পারে। এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস সাধারণত মানুষকে সংক্রমিত করে না, যদিও সেখানে বিরল ঘটনাও ঘটেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা