" /> ভুরুঙ্গামারীতে ৩ মাস থেকে বন্ধ ইউনিয়ন ভুমি অফিস ভোগান্তিতে সেবা গ্রহণকারীরা – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১০:৪৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ

ভুরুঙ্গামারীতে ৩ মাস থেকে বন্ধ ইউনিয়ন ভুমি অফিস ভোগান্তিতে সেবা গ্রহণকারীরা

received 1832325127129517

9 / 100

ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় ০১নং পাথরডুবি ইউনিয়নের ভূমি অফিসের উপসহকারী ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা প্রায় (০৩)তিন মাস যাবত অফিসে উপস্থিত না থাকায় চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সেবা গ্রহণকারীরা।


স্থানীয় সুত্রে জানা যায় , ০১ নং পাথরডুবি ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপসহকারী ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আমির হোসেন কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ি উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে গত ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে পাথরডুবি ইউনিয়ন ভূমি অফিসে অফিসিয়াল ভাবে যোগদান করেন।

received 1832325127129517


কাশিপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসে কর্মরত থাকা কালে তার বিরুদ্ধে প্রায় ০২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বিভাগীয় মামলা হয়। এতে তাকে ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা থেকে পদাবনতি দিয়ে (বেতনস্কেলসহ ডনেশন) ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা করে ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাথরডুবি ইউনিয়নে শাস্তিমূলক বদলী করা হয়।


পাথরডুবি ইউনিয়ন ভুমি অফিসে কর্মকালিন সময়ে আবারও আমির হোসেন ভূমি অফিসের প্রায় চুয়ান্ন হাজার (৫৪,০০০ ) টাকা সহ স্থানীয় কয়েক ব্যক্তির নিকট থেকে কাজ করে দেয়ার কথা বলে প্রায় চার লক্ষ টাকা নিয়ে বিগত( ০৩)তিন মাস যাবত অফিসে অনুপস্থিত। এই তিন মাস থেকে তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে পাথরডুবি ইউনিয়ন ভুমি অফিসটি। এ ব্যাপারে তাকে শোকজ করা হলেও তিনি শোকজের জবাব না দিয়ে ধারাবাহিকভাবে অনুপস্থিত রয়েছেন।


০১ নং পাথরডুবি ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের মকবুল হোসেন জানান, খারিজের জন্য নয় মাস আগে তহশিলদারকে ১৫ হাজার টাকা দিয়েছি। খারিজ হয় নাই। তিন মাস যাবত তিনি অফিসে আসছেন না।আবুল কাশেম জানান, পাঁচ মাস আগে জমি খারিজ করতে তহশিলদারকে ৪ হাজার টাকা দিয়েছি। তহশীলদার না থাকায় খারিজ আটকে রয়েছে।


ইসমাইল হোসেন জানান, খাজনা দিতে এসেছি। অফিস বন্ধ থাকায় খাজনা দিতে পারলাম না।
নাম প্রকাশ না করার শত্রে এক জন বলেন কতিপয় লোকজনের কাছ থেকে জামিনদার হয়ে টাকা নিয়ে দিয়েছি কাজ করবে বলে। এখনে সে পালাতক। কি করবো ভেবে পাচ্ছি না।


০১ নং পাথরডুবি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জনাব আব্দুস সবুর জানান, তহশিলদার না থাকায় পাথরডুবি ইউনিয়নের মানুষ প্রায় তিন মাস যাবত ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। দ্রুত একজন তহশিলদার নিয়োগর জন্য তিনি উদ্ধতন কতৃপক্ষের নিকট দাবী জানান।


উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপক কুমার দেব শর্মা জানান, ইতিপূর্বে তাকে দু’বার শোকজ করা হয়েছে এবং সর্বশেষ সহকারী কমিশনার (ভুমি) তাহমিদুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়েরের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর প্রতিবেদন প্রেরণ করেছেন।


ভুরুঙ্গামারী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভুমি) ট্রেনিংয়ে থাকায় তার বক্তব্য নেয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা