" /> সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাষ্টের নামে সহযোগিতা দেওয়ার কথা বলে প্রতারণার চেষ্টা – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৫৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ
রাত পোহালে রাজধানীতে বিএনপির গণসমাবেশ নারী জাগরণের মধ্যেই সকলের সম্মিলিত অংশগ্রহণে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে হবে : প্রধানমন্ত্রী বিদেশি কূটনীতিকদের বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে অযাচিত মন্তব্য না করার আহ্বান : সেতুমন্ত্রী গুজরাট বিজেপি ১৮২ আসনের ১৫৬টিতে জয়ী হয়ে রেকর্ড রিমান্ড শেষে কারাগারে টুকুসহ সাত জন জামিন নামঞ্জুর, কারাগারে ফখরুল-আব্বাস ফখরুল-আব্বাসকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ সর্দিতে নাক বন্ধ হলে আরাম পেতে যা করবেন আর্জেন্টিনা-নেদারল্যান্ডসের আগের লড়াইগুলো ম্যাচ পরিসংখ্যান ব্রাজিল ও ক্রোয়েশিয়ার ম্যাচ পরিসংখ্যান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেসিডেন্সি কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত

সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাষ্টের নামে সহযোগিতা দেওয়ার কথা বলে প্রতারণার চেষ্টা

13 20210505203458

নিজস্ব প্রতিবেদক: সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাষ্টের নামে সহযোগিতা দেওয়ার কথা বলে সাংবাদিকদের কাছ থেকে এটিএম কার্ডের তথ্য নিয়ে টাকা আত্মাসাৎ করছে একটি চক্র। চক্রটি এরআগে দুইজন সাংবাদিকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে তথ্য রয়েছে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের কাছে। অবশ্য সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের পক্ষ থেকে থানায় জিডি এবং সাইবার ক্রাইমে অভিযোগ করাও হয়েছে। কিন্তু আশানুরুপ ফল পাওয়া যায়নি।


ঢাকাটাইমসের একজন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিককে গত চার থেকে পাঁচদিন আগে ফোন দেয়। ফোনের অপরপ্রাপ্ত থেকে বলেন, আপনি কী ওমুক বলছেন? জ¦ী বলছি। আপনি কে বলছেন ? আমি সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাষ্ট থেকে নাজমুল বলছি। আপনার নামে আমাদের কাছে একটি চেক রয়েছে। তবে এবার আপনাকে চেক দেওয়া হবে না। আপনার এটিএম কার্ড আছে। জ¦ী আছে। তাহলে আপনার এটিএম কার্ডের নম্বর বলুন। তখন বলা হয়, এটিএম কার্ডতো আমার সাথে নেই। তখন বলা হয়, ঠিকআছে আপনি এটিএম কার্ড হাতে নিয়ে ফোন দিবেন।

13 20210505203458


ওই গণমাধ্যকর্মী আজকে অভিযোগ করে বলেন, আজকে মঙ্গলবার দুপুরে আবারও একটি নম্বর থেকে ফোন করে জানানো হয় আপনার নামে একটি চেক আছে। আপনি এরআগে ৫০ হাজার টাকা অনুদান পেয়েছিলেন ? জ¦ী পেয়েছিলাম। এবার আপনি ৩০ হাজার টাকা পেয়েছেন । আপনি সবশেষ কবে আর্থিক অনুদানের জন্য আবেদন করেছিলেন ? তখন বলা হয় আমি কোন আর্থিক অনুদান চেয়ে আবেদন করিনি। তখন অপরপ্রাপ্ত থেকে ফোনের লাইনটি কেটে দেয়।


এ ব্যাপারে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাষ্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সুভাষ চন্দ্র বাদল ঢাকাটাইমসকে বলেন, আমি এমন অভিযোগ আরো আগে পেয়েছি। পরে আমি থানায় জিডি করেছি এবং সাইবার ক্রাইমেও অভিযোগ করেছি। তিনি বলেন, এরা একটি প্রতারক চক্র। সাংবাদিকদের ফোন করে বলে, আপনি আগে একবার এত টাকা অনুদান পেয়েছিলেন ? আবার আপনার নামে টাকা এসেছে। তবে এবার আপনার টাকা ব্যাংকে দেওয়া হবে। তাই আপনার এটিএম কার্ডের নম্বর-পিন নম্বর বলুন। এভাবে সাংবাদিকদের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে তাদের টাকা আত্মসাৎ করে নেয়। সাংবাদিকদের কোন আর্থিক অনুদান দেওয়া হলে সেটির নাম ও জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বর দিয়ে তালিকা অনলাইনে প্রকাশ করা হয়। ওই তালিকা থেকে প্রতারকেরা তথ্য নিয়ে সাংবাদিকদের ফোন করে।

আমার জানামতে, দুইজন সাংবাদিককের কাছ থেকে তারা প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এরমধ্যে একজনের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।


সুভাষ চন্দ্র বাদল ঢাকাটাইমসকে বলেন, অনেকে এখন সচেতন হয়ে গেছে তাই কেউ ফোন করে তথ্য চাইলে আর তথ্য দেয়না। অনেকে সচেতন হয়ে গেছে। তবে ক্রাইম রিপোর্টারা নিউজ করলে উপকার হবে।


এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের সাইবার পুলিশ স্টেশনের বিশেষ পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ চৌধুরী ঢাকাটাইমসকে বলেন, আমাদের একটি সরকারী কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের একজন কর্মীর কাছ থেকে ২ লাখ ৮০ টাকা হাতিয়ে নিয়েছিল। আমরা ওই চক্রটি ধরেছিলাম। সাধারণত এই চক্রটি মানুষকে ফোন করে তার ক্রেডিট কার্ডের নম্বর, সিভিভি, পিন নম্বর চেয়ে থাকে। তবে সত্য কথা হচ্ছে কোন ব্যাংকও আপনার কাছে এই তথ্য জানতে চাইবে না। ওরা এমনভাবে লোভনীয় প্রস্তাব দেয়। যাতে যে কেউই তাদেরকে তথ্য দেয়। পরে তাদের ব্যাংক থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়।


র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈনের সরকারী মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি সেটি রিসিভ করেননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.


ফেসবুকে আমরা