বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন
নিউজ বোর্ড :
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ, ঠিকাদার কোম্পানিকে ব্ল্যাক লিস্ট করার, উত্তরায় গার্ডার দুর্ঘটনা মোহাম্মদ আলী মিয়া সিআইডি প্রধান হলেন একটু বাড়াবাড়ি হয়েছে বরগুনার ঘটনাটি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল বাম জোটের অর্ধদিবস হরতালের ডাক স্বাধীনতা দিবসে মোদি,২৫ বছরে উন্নত দেশ হবে ভারত, মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত নেত্রী অং সান সু চিকে ছয় বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন জান্তা সরকারের আদালত ফিফা নিষিদ্ধ করল ভারতকে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট নিয়ন্ত্রণে,চকবাজারে পলিথিন কারখানায় আগুন বিআরটি’র গার্ডার পড়ে উত্তরায় নিহত ৪ সেই ভয়াল রাতে,যা ঘটেছিল হারানো শোককে শক্তিতে রূপান্তর করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির প্রধান বিচারপতির শ্রদ্ধা,জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সংগ্রাম করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণে-ওবায়দুল কাদের দেশে-বিদেশে ষড়যন্ত্র চলছে,বাংলাদেশকে নিয়ে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছুঁতে পারত বঙ্গবন্ধুকে সবাই ধরতে পারত: পরিকল্পনামন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও আদর্শের মৃত্যু ঘাতকচক্র ঘটাতে পারেনি: প্রধানমন্ত্রী বাঙালি জাতির জন্য বেদনাবিধুর দিন ১৫ আগস্ট বিমানবন্দরে ফুল দিয়ে বরণের প্রস্তুতি, দেশে ফিরছেন শাকিব সব মসজিদে শোক দিবসে বিশেষ দোয়া-মোনাজাত
নোটিশ বোর্ড :
১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস, সে উপলক্ষে এনডিটিভির বিশেষ আয়োজন টেলিফিল্ম “৭৫ এর ১৫ আগষ্ট” দেখবেন আজ রাত ৯ -২০ মিনিটে, শুধু মাএ নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন এর পর্দায়।। জরুরি ঘোষণাঃ আমাদের আই টি বিভাগের কারিগরি উন্নয়ন এর কাজ চলছে! এতে প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে সাময়িক অসুবিধার জন্য দুঃখিত। #Ndtvbdnewsroom “জরুরী আবশ্যক”বেসরকারী অনলাইন টেলিভিশন চ্যানেল ” নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন ” এনডিটিভি তে এ উপস্থাপক উপস্থাপিকা, ভয়েস আটির্স,অফিস সহকারী পুরুষ – মহিলা এসএসসি,এইচএসসি,স্নাতক,ছবি সহ আবেদন করতে হবে এই মেইলে hr@ndtvbd.com * পরিক্ষামুলক সস্প্রচার * পরিক্ষামুলক সস্প্রচার * নাগরিক সাংবাদিকতার পথে ,আপনি হতে পারেন নাগরিক সাংবাদিক, দেরি না করে এখনি পাঠিয়ে দিন আপনার ছবি সহ বায়োডাটা এই মেইলে hr@ndtvbd.com, আপনারা যদি কোন সংবাদ বা নিউজ ক্লিপ পাঠাতে চান তাহলে এই মেইলে পাঠাতে পারেন news@ndtvbd.com– Head Of News–* পরিক্ষামুলক সস্প্রচার * পরিক্ষামুলক সস্প্রচার * পরিক্ষামুলক সস্প্রচার * পরিক্ষামুলক সস্প্রচার * পরিক্ষামুলক সস্প্রচার

দেশে চিরায়ত বাঙালি সংস্কৃতির বিকাশ ঘটানো প্রয়োজন- সজীব ওয়াজেদ জয়

সন্ধ্যায় তার ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে দেশবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি এসব কথা লেখেন।দেশবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, করোনামুক্ত দেশে আবারও প্রাণচাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনুক এবারের বৈশাখ। নতুন বছরের প্রথম দিন থেকেই সম্প্রীতির পথে হাঁটতে শুরু করুক সবাই। বাংলা ভাষা এবং হাজার বছরের বাঙালি সংস্কৃতির বিকাশ ঘটুক আমাদের নতুন প্রজন্মের হাত ধরে।

সজীব ওয়াজেদ জয় লিখেন, ‘যে ভাষা ও সংস্কৃতির জন্য প্রায় দুই যুগ সংগ্রাম করেছেন আমাদের পূর্বপুরুষরা, যে শোষণমুক্ত সাম্যভিত্তিক স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন ত্রিশ লাখ মানুষ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শিতায় আজ সেই দেশ ডিজিটাল রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।’

‘পূর্বপুরুষদের অনিঃশেষ ত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে, এই দেশে চিরায়ত বাঙালি সংস্কৃতির বিকাশ ঘটানো প্রয়োজন। আবহমান বাংলার প্রধানতম সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হলো অসাম্প্রদায়িকতা, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সমাজের সবাই মিলেমিশে থাকা। শান্তি ও সমৃদ্ধির আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে শুরু হোক নতুন বছর।’

তিনি লিখেন, ‘আপনারা জানেন- দীর্ঘ মুক্তিসংগ্রাম এবং ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে যে চারটি স্তম্ভের ওপর বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম হলো ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’। সবাই সবার নিজের ধর্ম পালন করবে, অন্যদের ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবে, ধর্ম নিয়ে কেউ সহিংসতা করবে না- এটাই হলো ধর্মনিরপেক্ষতার মূল কথা। এর সঙ্গে নৃতাত্ত্বিকভাবে চলে আসা বাঙালি সংস্কৃতির কোনো বিভেদ নেই।’

‘সাংস্কৃতিকভাবে আমরা অনেক সমৃদ্ধ জাতি। নিজেদের ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষার আন্দোলন থেকেই বাঙালি জাতি বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিল। অনেক ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত সেই স্বাধীন দেশে নিজেদের সংস্কৃতি লালন করা প্রতিটি নাগরিকের নৈতিক দায়িত্ব।

প্রধানমন্ত্রীর এ উপদেষ্টা আরও লিখেন, ‘ইতিহাস বলে, ধর্মীয় গোঁড়ামি কখনোই বাঙালির ওপর দীর্ঘমেয়াদে চেপে বসতে পারে নাই। আমাদের দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ নাগরিকই ধর্মপ্রাণ মুসলমান, কিন্তু ধর্মান্ধ নন। আমাদের পূর্বপুরুষরাই একসময় বাংলা ভাষা ও বাঙালি সংস্কৃতি রক্ষার জন্য ধর্মব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিলেন। যার ফলে, ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনে ২৩৭টি মুসলিম আসনের মধ্যে ২২৩টিতে জয়লাভ করে আওয়ামী লীগ। বিপরীতে মাত্র ৯টি আসন পেয়ে ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যায় ধর্ম ব্যবসায়ীরা। বাংলার মানুষ ঐতিহ্যগতভাবে সরলপ্রাণ ও ধর্মপ্রাণ, কিন্তু ধর্ম প্রদর্শনকারী বা ধর্ম ব্যবসায়ী নয়।’

‘প্রত্যেক বাঙালি শান্তিপূর্ণভাবে নিজ নিজ ধর্ম পালন করুন এবং একইসঙ্গে হাজার বছরের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য লালন করুন। যারা এটি নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করতে চায়, তারা বাংলাদেশকে, বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে এবং সংস্কৃতিকে ধারণ করে না। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি শান্তিপূর্ণ সমাজব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে আসুন আমরা সবাই জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করি।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.


ফেসবুকে আমরা