" /> হাতে মেশিনগান, বিনোদন পার্কে আনন্দে মাতলেন তালেবান যোদ্ধারা – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:১৯ পূর্বাহ্ন

হাতে মেশিনগান, বিনোদন পার্কে আনন্দে মাতলেন তালেবান যোদ্ধারা

indexdser 1

শুক্রবার হালিমি ও তার অনুসারী কয়েকশ তালেবান যোদ্ধাকে কাবুলের কারগা জলাধারের বালুময় তীরের একটি বিনোদন পার্কে ছুটি কাটাতে দেখা যায়। খবর এনডিটিভিরআফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের বিভিন্ন স্থানে তালেবান যোদ্ধাদের মেশিনগান নিয়ে হরহামেশাই ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়। এবার তালেবান যোদ্ধাদের দেখা গেল কাবুলের একটি জনপ্রিয় পার্কে।

আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে কয়েক মাসের সংঘর্ষ-সংঘাতের পর আফগানিস্তান দখল করে নেয় তালেবান। ক্ষমতা দখলের পর থেকে দেশটির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তালেবান যোদ্ধাদের ব্যস্ত সময় পার করতে হচ্ছে। এর মধ্যে প্রথমবারের মতো তাদের পার্কে ছুটি কাটাতে দেখা গেল।

রয়টার্সের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানিয়েছে, ২৪ বছর বয়সী এক হালিমি যোদ্ধা বলেন, কাবুলে আসার পর প্রথমবারের মতো কারগা দেখে খুব আনন্দ লাগছে। জনগণ আমাদের স্বাগত জানিয়েছে। এই যোদ্ধা অবশ্য তার নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি।

পার্কে থাকার যোদ্ধাদের সবাই সশস্ত্র ছিল। তাদের কেউ চা পান করছিল। কেউ আবার স্টল থেকে স্নাক্স কিনে খাচ্ছিলেন। কেউ কেউ পার্কের রাইডে চড়েছেন। কাউকে কাউকে রাইডে চড়ার জন্য সারিবদ্ধভাবে অপেক্ষা করতেও দেখা গেছে।

কাবুল দখলের আগ পর্যন্ত অনেক তালেবান যোদ্ধাই আগে কখনও রাজধানীতে আসেননি। কেউ কেউ দেশটির বিভিন্ন অঞ্চলে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেছেন । এ কারণে অনেকেই বিনোদন পার্ক পরিদর্শনে আগ্রহী ছিলেন।

indexxxxx 1

 

হালিমি এক যোদ্ধা বলেন, যুদ্ধ করেছি বলে আমরা গর্বিত। আমেরিকানরা চলে গেছে। এটাই আমাদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের। তিনি জানান, পার্কে তার এক চাচাতো ভাইয়ের সাথে হয়েছে। তালেবানদের প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে তারা পার্কে পিকনিকের আয়োজন করেছে।

পশ্চিমা সমর্থিত সরকারের বিরুদ্ধে ২০ বছরের যুদ্ধ চালায় তালেবান। গত ১৫ আগস্ট তালেবান সরকারের পতনের মধ্য দিয়ে দেশটি তালেবানের নিয়ন্ত্রণে আসে। ক্ষমতা দখলের প্রায় এক মাসের মাথায় গত সেপ্টেম্বর মাসের শুরুর দিকে তালেবান সরকার গঠনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়। বিদেশি সেনারা আফগানিস্তান থেকে চলে যাওয়ার পর দেশটির আইনশৃঙ্খলা রক্ষাসহ নানামুখী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে তালেবানকে।

তালেবান যোদ্ধাদের এখন দেশব্যাপী নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) ইতিমধ্যে আফগানিস্তানে একাধিক রক্তক্ষয়ী হামলা চালিয়ে তালেবানের দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গত শুক্রবার আফগানিস্তানের উত্তর -পশ্চিমাঞ্চলের একটি মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলায় কমপক্ষে ৪৬ জন নিহত এবং ১৪০ জনেরও বেশি আহত হয়েছেন।  আইএস ইতোমধ্যে এই হামলার দায় স্বীকার করেছে। ndtvbd/news desk


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা