" /> ধামাকা’র বৈধ কোনো কাগজই ছিল না: র‌্যাব – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন

ধামাকা’র বৈধ কোনো কাগজই ছিল না: র‌্যাব

বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর কারওয়ানবাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন এ তথ্য জানান।ধামাকার বৈধ কোনো কাগজই ছিল না বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ২৩ সেপ্টেম্বর গাজীপুরের টঙ্গী পশ্চিম থানায় এক ভুক্তভোগী প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে “ধামাকা শপিং ডট কম” এর চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সিওওসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এছাড়া আরো বেশকিছু ভুক্তোভোগীর অভিযোগ রয়েছে। জানা যায়, ভুক্তভোগীরা বিভিন্ন সময়ে অপমান হেনস্থা ও ভয়ভীতির শিকার হয়েছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় আজ (২৯ সেপ্টেম্বর) ভোরে র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‍্যাব-২ এর অভিযানে রাজধানী তেজগাঁও এলাকা থেকে প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ‘ধামাকা শপিং ডট কম’ এর মোঃ সিরাজু ইসলাম রানা (৩৪), মোঃ ইমতিয়াজ হাসান সবুজ (৩১) এবং (৩) মোঃ ইব্রাহিম স্বপনকে (৩৩) গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রাহকদের প্রতারিত হওয়ার বিভিন্ন বিষয়াদি কৌশল সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত মোঃ সিরাজুল ইসলাম রানা “ধামাকা শপিং ডট কম”-এর সিওও; ইমতিয়াজ হাসান সবুজ, ক্যাটাগরি হেড “মোবাইল ফ্যাশন ও লাইফ স্টাইল” এবং ইব্রাহীম স্বপন ক্যাটাগরি হেড “ইলেক্ট্রনিক্স” হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন। জানা যায়, ২০১৮ সালে “ধামাকা ডিজিটাল” পরবর্তীতে ২০২০ থেকে “ধামাকা শপিং ডট কম” নামে কার্যক্রম শুরু হয়। গ্রেফতারকৃতরা ২০২০ থেকে ওই প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত রয়েছেন। অক্টোবর ২০২০ থেকে প্রতিষ্ঠানটি নেতিবাচক এগ্রেসিভ স্ট্র্যাটিজি নিয়ে মাঠে নামে।

গ্রেফতারকৃতরা জানায়, “ধামাকা শপিং ডট কম”-এর কোন প্রকার অনুমোদন ও লাইসেন্স নাই, ব্যবসায়িক একাউন্ট নাই। ব্যবসা পরিচালনায় ইনভেরিয়েন্ট টেলিকম বাংলাদেশ লিমিটেড নামক প্রতিষ্ঠার একাউন্টের মাধ্যমে ব্যবসায়িক লেনদেন করা হয়েছে।

জানা যায়, এ পর্যন্ত প্রায় ৭৫০ কোটি টাকা লেন হয়েছে। বিপুল পরিমান অর্থ লেনদেন হওয়া সত্ত্বেও বর্তমানে ঐ একাউন্টে মাত্র যতসামান্য টাকা জমা রয়ে বর্তমানে সেলার বকেয়া রয়েছে প্রায় ১৮০-১৯০ কোটি টাকা, কাস্টমার বকেয়া ১৫০ কোটি টাকা এবং কাস্ট রিফান্ড চেক বকেয়া ৩৫-৪০ কোটি টাকা। গ্রেফতারকৃতরা জানায়, আর্থিক সংকটের কারণে গত কয়েক যাবত প্রতিষ্ঠানের অফিস এবং ডেপো ভাড়া বকেয়া রয়েছে।

পাশাপাশি জুন ২০২১ থেকে কর্মচারীদের বেতন বকেয়া রয়েছে। গত এপ্রিল থেকে “ধামাকা শপিং ডট কম” এর অর্থ অন্যত্র সরিয়ে ফেলার কারণে জুলাই ২০ হতে সকল কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। “ধামাকা শপিং ডট কম” এর ব্যবসায়িক অবকাঠামো সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, মহাখালী তাদের প্রধান কার্যালয় এবং তেজগাঁও বটতলা মোড়ে একটি ডেলিভারী হাব রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ৬০০ ব্যবসায়িক চেইন রয়েছে। এর মধ্যে নামিদামি প্রতিষ্ঠানও রয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা আরও জানায়, “ধামাকা শপিং ডট কম ছাড়াও তাদের আরও কয়েকটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যেমন— ইনভেরিয়েন্ট টেলিকম বাংলাদেশ লিমিটেড, মাইক্রোট্রেড ফুড এবং বেভারেজ লিমিটে এবং মাইক্রোট্রেড আইসিক্স লিমিটেড ইত্যাদি।

মূলত প্রতিষ্ঠানটির মূল উদ্দেশ্য তৈরিকারক ও গ্রাহক চেইন বা নেটওয়ার্ক থেকে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নেওয়া। এছাড়া “হোল্ড মানি প্রসেস প্লান” অর্থাৎ গ্রাহক ও সরবরাহকারীদের টাকা আটকিয়ে রেখে অর্থ সরিয়ে ফেলা ছিল অন্যতম উদ্দেশ্য। বিশাল অফার, ছাড়ের ছড়াছড়ি আর নানাবিধ অফার দিয়ে সাধারণ জনগণকে প্রলুব্ধ করা হত। এভাবে যাতে দ্রুততম সময়ে ক্রেতা বৃদ্ধি পায় সেই লক্ষ্যে কাজ করতো তারা।

জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় “ধামাকা শপিং ডট কম” এর গ্রাহক সংখ্যা প্রায় ৩ লক্ষাধিক। মোবাইল, টিভি ফ্রিজ, মোটরবাইক, গৃহস্থলীপণ্য ও ফার্নিচার ইত্যাদি বিভিন্ন অফারে বিক্রি করা হত। “ধামাকা শপিং ডট কম” এর বিভিন্ন লোভনীয় অফারগুলো হলো: সিগনেচার কার্ড ২০%-৩০%, ধামাকা নাইট এ ৫০% পর্যন্ত, রেগুলার এ ২০%-৩০% ছাড় প্রদান করা ইত্যাদি। সিগনেচার কার্ড অফারটি গত মার্চ- এপ্রিল পর্যন্ত পরিচালনা করা হয়। মাত্র ২০% পণ্য সরবরাহ করে অর্থ সরিয়ে গ্রাহকদের চেক প্রদান করা হয়। এরপর ধীরে ধীরে সকল অর্থ সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, “ধামাকা শপিং ডট কম” ব্যবসায়িক কর্মকান্ডে মূলত তারা ইনভেনটরি জিরো মডেল এবং হোল্ড মানি প্রসেস প্লান ফলো করত। কয়েকটি দেশি-বিদেশী ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের লোভনীয় অফারের আলোকে “ধামাকা শপিং ডট কম” এর ব্যবসায়িক স্ট্র্যাটেজি তৈরি করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির কোন ইনভেস্টমেন্ট ছিল না বলে গ্রেফতারকৃতরা জানায়। ndtvbd/news desk


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা