" /> ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ভোট: 'রাজনৈতিক ভুল' – নাগরিক দৃষ্টি টেলিভিশন
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৯:১৩ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ
খালেদা, তারেককে নিয়ে সময় টিভির প্রতিবেদন সম্পর্কে যা বললেন ফখরুল বিদ্যুতের দাম প্রতি মাসেই সমন্বয় করা হবে : প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী বিশ্বব্যাপী উচ্চশিক্ষার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছেন : নাছিম বিআইডব্লিউটিএ’র অনুমোদন ছাড়া কোনো সেতু নয় : নৌ প্রতিমন্ত্রী সিলেটে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস- ২০২৩ উদযাপন সাংবাদিক আফতাব হত্যা : ৯ বছর ছদ্মবেশে ফাঁসির আসামি, অবশেষে গ্রেপ্তার বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা সাংবাদিক আফতাব হত্যা : ৯ বছর ছদ্মবেশে ফাঁসির আসামি, অবশেষে গ্রেপ্তার বার বার আদালতে আনা নেয়ায় অসুস্থ হয়েছেন রিজভী : ইউট্যাব ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার মূল হাতিয়ার হবে ডিজিটাল সংযোগ : প্রধানমন্ত্রী

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ভোট: ‘রাজনৈতিক ভুল’

BNP

২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ভোটের মাঠে নামাকে ‘রাজনৈতিক ভুল’ বলে মনে করছেন বিএনপি নেতারা। তারা বলছেন, এবার আন্দোলন বলেন কিংবা নির্বাচন, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বেই সব কিছু করতে হবে।

ধারাবাহিক বৈঠকের দ্বিতীয় দিন গতকাল বুধবার গুলশানে চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে দলের মধ্যম সারির নেতারা নিজেদের এ মতামত জানান। যুক্তরাজ্য থেকে স্কাইপির মাধ্যমে যুক্ত হয়ে তারেক রহমান এতে সভাপতিত্ব করেন।

বিকাল ৪ টায় এ বৈঠক শুরু হয়। পৌনে আট ঘণ্টা ব্যাপী চলা এই বৈঠকে অংশ নেওয়া ১১০ জন সম্পাদক ও সহ সম্পাদককের মধ্যে ৬০ জন বক্তব্য রাখেন।

রুদ্ধদ্বার বৈঠক সূত্রে জানা যায়, দলটির নেতারা বলেন, ‘আমাদের আগে সিদ্ধান্ত নিতে হবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে বিএনপি কোনো নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না। এরপর বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠনের দাবিতে আন্দোলনে নামার সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এই দাবির আদায়ে বিষয়ে কোনো রকম ছাড় দেওয়া যাবে না।

সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিয়ে আন্দোলনে নামতে হবে। আমাদের আন্দোলনের বিকল্প নেই। এবারের আন্দোলনে কোনো রকম ব্যর্থ হওয়া যাবে না। পরিকল্পিতভাবে আন্দোলন করতে হবে। বিগত আন্দোলনে আমাদের কী কী ভুল ছিল তা চিহ্নিত করতে হবে। সেই ভুলগুলো এবার কোনো অবস্থায় করা যাবে না।’

নেতারা বলেন, ‘আন্দোলনে নামার আগে তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত নেতাকর্মীদের মাঝে একটি আত্মিক বন্ধন গড়ে তুলতে হবে। যাতে করে, দেশের কোথাও কোনো নেতাকর্মী ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও সরকারের দ্বারা নির্যাতনের শিকার হলে একযোগে প্রতিবাদে ফেটে পড়তে হবে।

নেতারা বলেন, ‘যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদল ও মহিলা দলকে সক্রিয় রাখতে হবে। পুনর্গঠন ও রাজপথে রাখতে অভিজ্ঞ নেতাদের দিয়ে সুপার ভিশন করতে হবে। পাশাপাশি নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠনের দাবিকে জনগণের দাবিতে পরিণত করতে ২০-দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে অটুট রেখে ডান-বামসহ সরকারবিরোধী বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, পেশাজীবীসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে।

পুনর্গঠন প্রসঙ্গে বিএনপি নেতা জিকে গাউস বলেন, ‘আমাদের এলাকায় অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতারা গেলে বলেন, তারেক রহমানের নির্দেশ বিএনপি নেতাদের সঙ্গে কথা বলা যাবে না। তা হলে আমরা কি অন্য দল থেকে এসেছি? এগুলো দেখতে হবে। তার এলাকার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের দুর্দশার চিত্র তুলে ধরে বলেন, ১১ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কোনো কমিটিই পূর্ণাঙ্গ নেই। বেশিরভাগ কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ।’

বিএনপির সম্পাদক অধ্যক্ষ সেলিম ভূঁইয়া বলেন, ‘স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যানসহ যেসব পদ শূন্য রয়েছে তা দ্রুত পূরণ করতে হবে। আর আন্দোলনের বিকল্প নেই। কিন্তু উদার মন নিয়ে এ সরকারকে সরানো সম্ভব নয়।’

বিএনপির সহ সম্পাদক শাহাবুদ্দিন সাবু বলেছেন, ‘আন্দোলন শুরু করার আগে যেসব নেতারা দেশের বাইরে চিকিৎসা নেন, তাদের আগেই চিকিৎসা নিতে হবে। আন্দোলন চলাকালে সব নেতার পাসপোর্ট স্থায়ী কমিটির নেতাদের কাছে জমা দিতে হবে। পরিকল্পিতভাবে আন্দোলন শুরু করতে হবে, কোনো অবস্থায় ব্যর্থ হওয়া যাবে না।’

এই বৈঠকের মূলমঞ্চে ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

ndtvbd/ news desk


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা